bith74@yahoo.com +880 1534672651

বিভিন্ন কৌশল রপ্ত করা


বিভিন্ন কৌশল রপ্ত করা

১। তামাক ছাড়ার জন্য নিজের সিদ্ধান্ত নিজেই নিন- মনকে দৃঢ় করুন, ইচ্ছাশক্তি বাড়ান এবং তামাকজাত দ্রব্য ছাড়ার জন্য একটা তারিখ ঠিক করুন। মানসিক প্রস্তুতি থাকলে তামাক ছাড়ার জন্য যে কোন সময়ই সঠিক। ক্যালেন্ডারে ওই তারিখটি চিহ্ন দিয়ে রাখুন।


২। পারিপার্শিক পরিবেশ অনুকূলে রাখুন। যেমন:

(ক) বাড়ি, অফিস এবং গাড়িতে কোন প্রকার তামাকজাত দ্রব্য রাখবেন না।

(খ) তামাক গ্রহণকারী ব্যাক্তিদের আশে-পাশে না থাকা চেষ্টা করুন।


৩। প্রেরণা ও সহযোগিতা নিন- সহযোগিতা এবং উৎসাহ বিভিন্নভাবে পাওয়া যেতে পারে-

(ক) আপনার পরিবার-পরিজন, বন্ধু এবং সহকর্মীদের বলুন তারা যেন প্রতিনিয়ত তামাক ও তামাক জাতীয় দ্রব্য ছাড়ার ব্যাপারে আপনাকে উৎসাহিত করে এবং আপনার সামনে যেন তার এ জাতীয় দ্রব্য ব্যবহার না করে।

(খ) তামাক ছাড়ার ব্যাপারে দলগত আলোচনা করুন। গবেষণায় দেখা গেছে, এ ধরনের আলোচনা কার্যকর।

(গ) প্রয়োজনে ডাক্তার, ডেন্টিস্ট, নার্স, ফার্মাসিস্ট, মনোরোগ বিশেষজ্ঞ বা স্বাস্থ্যকর্মীর সাথে আলাপ করুন


৪। নতুন নতুন কৌশল করুন-

(ক) ধুমপানের প্রবল ইচ্ছা হলে সে সময় মনকে অন্য দিকে সরিয়ে রাখুন। যেমন- কারো সাথে কথা বলুন, হাঁটতে বের হোন কিংবা কোন কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকুন।

(খ) প্রথমে যখন ছাড়ার চেষ্টা করবেন তখন প্রতিদিনের রুটিন পরিবর্তন করুন। যারা কফি পান করেন তারা কফির পরিবর্তে চা পান করুন। নিয়মিত যেখানে বসে ধূমপান করেন সেই স্থান পরিবর্তন করুন।

(গ) মানসিক চাপ কমানোর জন্য কিছু করুন যেমন- গান শোনা, ব্যায়াম করা, খেলাধুলা করা বা বই পড়ার অভ্যাস করুন। ব্যায়াম আপনার মানসিক অস্থিরতা কমাবে এবং ধুমপানের আসক্তি থেকে মুক্তি দিবে

(ঘ) সাইকেল চালান, সাঁতার কাটুন এবং মেডিটেশন করুন।

(ঙ) প্রতিদিন আনন্দদায়ক কিছু করুন। লাইব্রেরিতে গিয়ে বই পড়ার অভ্যাস করুন। বিভিন্ন বিনোদনমূলক স্থান ও ধুমপানমুক্ত এলাকায় সময় কাটান।

(চ) ধর্মীয় কার্যক্রমে আত্ননিয়োগ করুন।

(ছ) প্রচুর পানি এবং তরল খাবার খান।

(জ) অনেকে আছেন যারা মন ভালো করার জন্য ধুমপান করেন এটা একেবারে ঠিক না। সাময়িক আনন্দের জন্য দেহকে তামাকের বিষাক্ত ধোঁয়ার বিষময় করা অনুচিত। মন ভালো করার অনেক উপায় আছে সেগুলো রপ্ত করার চেষ্টা করুন।

(ঝ) প্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শে ঔষধ গ্রহন করুন।

(ঞ) পূর্বে যদি কখনও তামাকজাত দ্রব্য ছাড়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে থাকেন তাহলে ব্যর্থতার কারণগুলো বের করার চেষ্টা করুন এবং সে সকল বাধাসমুহ দূর করে আবারো চেষ্টা করুন।